মাদকবিরোধী অভিযানের পেছনে ষড়যন্ত্র আছে : মির্জা ফখরুল

প্রতিদিন মানুষ হত্যা করা হচ্ছে। যাদেরকে হত্যা করা হচ্ছে তাদের বিচার হচ্ছে না। কারা আজকে বাংলাদেশে একটা নতুন পরিবেশ সৃষ্টি করার জন্য এসব করছেন।

অন্য কোনো কিছু আগাম সৃষ্টি করার জন্য এটা করা হচ্ছে কিনা- তা নিয়ে আমরা উদ্বিগ্ন। এটাকে যদি শুধু আমরা মাদকবিরোধী অভিযান মনে করি তাহলে ভুল হবে বলে মন্তব্য করেছেন বিএনপি মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর।

সোমবার দুপুরে জাতীয় প্রেস ক্লাবের কনফারেন্স লাউঞ্জে ঢাকা মহানগর স্বেচ্ছাসেবক ফোরামের উদ্যোগে বিএনপি চেয়ারপারসন খালেদা জিয়া ও স্বেচ্ছাসেবক দলের সভাপতি শফিউল বারী বাবুর মুক্তির দাবিতে আয়োজিত প্রতিবাদ সমাবেশে তিনি এসব কথা বলেন।

বন্দুক যুদ্ধে নিহত কক্সবাজারের টেকনাফের পৌর কাউন্সিলর ও উপজেলা যুব লীগের সাবেক সভাপতি একরামুল হকের প্রসঙ্গ টেনে ফখরুল বলেন, আজকের পত্রিকায় আছে দেখবেন, কক্সবাজারের একজন কাউন্সিলর যাকে হত্যা করা হয়েছে।

সেই এলাকার সমস্ত মানুষ বলছে, একজন নিরহ ভালো মানুষকে হত্যা করা হয়েছে। আর পরিচিত তাদের গায়ে আপনি ফুলের টোকাও দিচ্ছেন না।

তিনি বলেন, আজকে রক্তাক্ত হয়ে গেছে বাংলাদেশ। ২০১৩ সালে যখন তত্ত্বাবধায়ক সরকারের জন্য আন্দোলন করছিলাম, তখন রক্ত ঝড়িয়েছে।

২০১৪ সালে ৫ জানুয়ারির পর যখন আন্দোলন করেছিলাম, তখনও রক্ত ঝড়িয়েছে। এবার যে রক্ত ঝরছে তা সত্যিকার অর্থে ইতোপূর্বে আর কখনও ঝড়েনি। এত রক্ত ১৯৭১ সাল ছাড়া এদেশে আর কখনো ঝরে নাই।

তিনি বলেন, একটি নির্বাচন দিন, যে নির্বাচনটা হবে একটা সুষ্ঠু, অবাধ ও সকলের কাছে গ্রহনযোগ্য, সবাই ভোট দিতে পারবে। গণতান্ত্রিক সমাজে নির্বাচন ছাড়া ক্ষমতা পরিবর্তনের কোনো পথ নেই। খালেদা জিয়াকে মুক্তি দিয়ে নিরপেক্ষ সরকারের অধীনে অবশ্যই সরকারকে নির্বাচন দিতে হবে বলে মন্তব্য করেন বিএনপি মহাসচিব।

সংগঠনের সভাপতি ফখরুল ইসলাম রবিনের সভাপতিত্বে এ সময় বিএনপি নেতা আবদুল আউয়াল মিন্টু, মসিউর রহমান, খায়রুল কবির খোকন, মীর সরফত আলী সপু, স্বেচ্ছাসেবক দলের মোস্তাফিজুর রহমান, সাইফুল ইসলাম ফিরোজ, গোলাম সারোয়ার, ইয়াসীন আলী, প্রমুখ বক্তব্য রাখেন।

Leave a Reply

Your email address will not be published.